আমার মস্তিস্কের উদ্যোক্তা নামা (জুয়েল)

বাংলাদেশ একটি উর্বর উদ্যোক্তা সম্পন্ন দেশ। এদেশের আনাচে কানাচে ভীড় করে আছে কোটি উদ্যোক্তা। কিন্ত এর মধ্যেও ভেজাল আছে ব্যক্তিগত ভাবে আপনিও জানেন না আপনার আশে পাশে কত সিইও আছে , ম্যানেজিং ডিরেক্টর আছে । আমি মাঝে মাঝে আমাদের ফোরামের আমার সম বয়সী অনেকের সাথে কথা বলতেই ভয় পায় , এরা হুট হাট করে একাধারে সিইও , এম ডি ইত্যাদি ইত্যাদি ডেজিগনেশনের কার্ড বের করে দেয় ।
কিন্তু এতে আমার সমস্যা কি ? সমস্যা আছে এই যে উদ্যোগ আপনি নিলেন সেই হিসেবে নিজেকে উদ্যোক্তা পরিচয় দিতে আপনার এত সংকোচ কেন ? আমরা অনেকেই জানিনা অনেক সিনিয়র আছেন যারা চান তরুনদের সাহায্য করতে কিন্তু এই সব ডেজিগনেশন দেখে নিজেই তাদের থেকে সাহায্য পাবেন এই টাইপ দ্বিধা দন্দে পড়ে যান ।
আমার একান্ত ব্যক্তিগত মত বা আমার মস্তিস্ক প্রসুত জ্ঞান বলে আমি সি ই ও বলতে একজন বিচক্ষন সংশ্লিষ্ট কর্মে অভিজ্ঞ কিংবা সংশ্লিষ্ট বিষয়ে দীর্ঘ দিনের পড়াশোনা রয়েছে এমন একটি চিত্র কে বুঝি । এক জন উদ্যোক্তার নিজে সি ই ও হবার থেকে নিজ কোম্পানিতে কবে সি ই ও নিয়োগ দিতে পারব এই দিকে ছুটে বেড়ানো উচিৎ বলে আমি মনে করি । আমাদের উদ্যোক্তাদের এত কিছু শেখানো হয় এই জিনিসটা শেখানোর জন্য প্রয়োজন অনুভব করছি ।
একজন উদ্যোক্তা তার উদ্যোগের প্রতি বিচক্ষন থাকবেন এটাই স্বাভাবিক , আমাদের দেশের উদ্যোক্তাদের এই দিকভ্রমের এক মাত্র কারন হচ্ছে না পড়ে না অনুসন্ধান করেই ফটাস করে মার্কেটে নেমে পড়া । আমি ব্যক্তিগত ভাবে কতক গুলি বন্ধু উদ্যোক্তাদের সাহায্য করার জন্য চেস্টা করেছি বিশ্বাস করুন একজনের ও লিখিত ফ্লোচার্ট নাই , কোন স্ট্রাকচার করা নাই , অনেকের ডায়েরিই নাই । আমাদের উদ্যোক্তাদের দেখে অনেকি হাসাহাসি করেন , ইন্ডাস্ট্রি সতীর্থ হিসবে আমার একটু হলেও খারাপ লাগে যার কারনেই লেখাটা লিখতে বসেছি । আমার ব্যক্তিগত মত অনুযায়ী কয়েকটি মৌলিক দিকে উদ্যোক্তাদের মনোযোগী হওয়া অতিব জরুরী যেমনঃ
১। শিক্ষা যে ক্ষেত্রটি নিয়ে আপনি কাজ করবেন , তার ধরন , দেশে সেই ক্ষেত্রটির গ্রহণ যোগ্যতা , কয়েকটি একই রকমের উদ্যোগের কেস স্টাডিজ , বিজ্ঞাপন এর একাল সেকাল ইত্যাদি নিয়ে পড়াশোনা করুন । একদিন না অনেক অনেক করে পড়াশোনা করুন ।
২। পদের থেকে কাজের উপর বেশি জোর দিন , যে কোন কাজ করার জন্য প্রস্তুত থাকুন । যে কোন সময়ে আপনার উদ্যোগকে সহায়তা করার জন্য নিজেকে পিওন স্টাইলে প্রস্তুত রাখুন ।
৩। ইগো পরিহার করুনঃ এইটার শেষ দেখে ছাড়ব স্টাইলে ব্যবসা না করায় ভালো , উদ্যোগ নিন , মার্কেট এ প্রবেশ করুন এবং পরিস্থিতি মেনে নিন । নিজের উদ্যোক্তা মানসিকতা বজায় রাখুন , কখনো হেরে গেছেন এমন মানসিকতা মনেও আনবেন না ।
৪। অবশ্যই সৎ মূল্যবোধ নিয়ে চলতে হবে , দান মারার স্টাইল মনে আসলেও তা পরিহার করতে হবে ।
৫। কার থেকে শিখব সেটা আগে শিখতে হবে । হয় শিক্ষিত কারো থেকে শিখবেন , না হলে ঠ্যাক খাওয়া কারো কাছ থেকে , কিংবা সফল কোন উদ্যোক্তার থেকে । আ তে আমটি আমি খাবো পেড়ে এই টাইপ শেখা আপনি গুগগ ঘাটলেই অনেক পাবেন , পড়েন , না বুঝলে কমিউনিটিতে আলোচনা করেন । আমাদের দেশের উদ্যোক্তারা যার অফিস ওয়ার্ড , এক্সেল এ কাজ না জানার জন্য চাকুরী হয় নাই তার কাছে দৌড়ে যেয়ে এডভান্স এক্সেল কোচিং করেন । শেখার আগে কার থেকে শিখব এই সেন্স তৈরি অতিব জরুরী ।
৬। আমি ব্যক্তিগত ভাবে পারিপার্শিক মানুষ , সংশ্লিষ্ট আপন লোক , অভিজ্ঞ উদোক্তা , গুরুজন দের থেকেই শেখার চেষ্টা করি । আমার এই ইন্ডাস্ট্রি রিলেডেট যত জানা শোনা তার অধিকাংশই M. Sahab Uddin Shipon ভাই থেকে পাওয়া । উনি আমার জন্য একজন জীবন্ত বিশ্ববিদ্যালয় বলতে পারেন । আমাকে কত বই দিয়েছেন পড়তে , আর্টিকেল দিয়েছেন পড়তে তার ইয়ত্তা নাই । আমি সব সময় এজন্য কৃতজ্ঞ ।
৭। টাকা ছাড়াই দুনিয়া কাপিয়ে ফেলবেন এই মতবাত বিশ্বাস করবেন না । আপনি যদি খাইলে ক্ষুধা লাগবেনা টাইপ ট্যাব্লেট ও আবিস্কার করে ফেলেন তার পরেও তার প্রচারনার জন্য হলেও কিছু টাকা আপনার লাগবে । টাকা খরচ করে সফল হবার পর পত্রিকা আর টিভিতে বলতে আরবেন শুন্য থেকে শুরু করেছিলাম আর কি ।
উদ্যোক্তা হতে গেলে ধৈর্য , কস্ট সহিষ্ণু , একটু পড়াশোনা , বা অনুসন্ধান প্রিয় হওয়া , সাথে টাকা পয়সার সঠিক ব্যবহার করতে শেখা জরুরী । এছাড়া সাইফুরস কোচিং এও কিছু হবে বলে মনে হয়না ।
Author

Write A Comment