বড় কোম্পানীগুলো ই-কমার্সে

 

বড়-কোম্পানীগুলো-ই-কমার্স এ আসায় ছোট ই-কমার্স ব্যবসায়ীদের মনে যে ভয় ঢুকে যাচ্ছে তা আমরা নিজেরাই অনুভব করতে পারছি । যদিও গ্রামীনফোন এর কিদরকার ডট কম কে নিয়ে ভয়ের কিছু নেই তবুও যে ভয়টা আমাদের মনে একবার ঢুকে গেছে তাও অমুলক নয় । আজ বাদে কাল এমাজন কিংবা আলিবাবা আসতেই পারে আমাদের ১৮ কোটি ক্রেতার কাছে । তাই বলে আমাদের দেশীয় ই-কমার্স থেমে যাবে ?

মোটেই না ভারতের বাজারে এমাজন থাকতেও ফ্লিপকার্ট , মিন্ট্রা , স্নাপডিল দাপটে বিজনেস করে যাচ্ছে । আসলে আমাদেরকে শুধু আশার উপর ই-কমার্স দাড় না করিয়ে বিষয় টা বুঝে এখানে আসা উচিত । যাই হোক কিছু একান্তুই ব্যক্তিগত মতামত দিই ।

ছোট ই-কমার্স গুলোর কি করা উচিত বলে আমি মনে করি ?

  • ১. নিজেকে বিশেষ একটা পন্যের বা একটি ক্যাটাগরির পন্যের ব্রান্ড বানিয়ে ফেলুন , একাই দেশের সব বিক্রি করবেন ভেবে সাইটে ক্যাটাগরির বন্যা বইয়ে দিবেন না । আমাদের দেশের শতকরা ৯০ ভাগ ওয়েব সাইটের এই বেহাল দশা , দেখা যায় লবন ও বেচে আবার মোবাইল ও বেচে । ভেবে দেখুন তো আপনার পাশের মুদি দোকানে কখনো বার্গার কিনতে গেছেন কিনা ?
  • ২. মোতালিব প্লাজা গেছিলাম । আপনার পরিচিত কেউ এই কথা বললে প্রথমেই যে বিষয় টা মাথায় আসবে তা হল উনি মোবাইল রিলেটেড কোন কাজে সেখানে গেছে , এখানে মোতালিব প্লাজা মোবাইল রিলেডেট বাজারের জন্য ব্রান্ড হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে । চেষ্টা করুন হয়ত বা কোন একদিন মানুষ আপনার ওমক ডট কম কে কোন এক ধরনের পন্যের জন্য খোজ করবে ।
  •  
  • ৩. নিজ এলাকাতে বা আশে পাশের এলাকাতে প্রচার বৃদ্ধি করুন । শুধু ফেসবুকে সারা দেশে এড দিয়ে কি লাভ ? নিজের আশে পাশে চমৎকার সার্ভিস দিতে পারলে নিজের এলাকা থেকেই ব্যবসা করতে পারবেন । এক্ষেত্রে এলাকার দোকান হিসেবে যে সিম্পাথি বা বিশ্বাস আপনি অর্জন করবেন তা এমাজন এসে করতে অনেক সময় নিবে ।
  •  
  • ৪. দুই নম্বর বা ৪ নম্বর পন্য বিক্রয় করবেন না , এতে চাইনার উন্নতি হলেও দেশের উন্নতি হয় না । অবশ্য নিতিমালা হলে এগুলোতে নজর দেয়া উচিত ।
  •  
  • ৫. দেশিয় ইকমার্স গুলোর দেশীয় মার্কেটপ্লেস (যেমন দিনরাত্রি) এর সাথে ভালো সম্পর্ক থাকা দরকার এতে করে তারা তাদের স্টক বা পন্য সংক্রান্ত অনেক ঝামেলা সহজেই কমানো যায় । মনে রাখবেন যে কোন মার্কেট এ ভালো ব্রান্ড গুলোর দোকান থাকলে ব্রাণ্ডটি বেশি পরিচিত হয় । ( উদাহরনঃ রিচম্যান, ইয়োলো , কিংবা সিপি)
  •  
  • ৬. সাইটে বা ক্রেতাকে দাম বলার সময় কখনোই অনেক বেশি কম্প্রোমাইজ করবেন না , এক্ষেত্রে যাচাই পুর্বক দাম ব্যবহার করবেন । এতে দেশীয় কাস্টমারদের বিশ্বাস মজবুত থাকবে । মনে রাইখেন আজ আপনি ট্যাব ৩০০০ বেচলেন আর একজন ৫০০০ হাজার ভাবলেন ওদের ঠকিয়ে দিলেন , কাল ওরা ১৫০০ টাকায় মোবাইল বেচবে যা আপনি বেচতেসেন ৪০০০ টাকায় । এতে করে আপনার ও লাভ নাই তাদের ও লাভ নাই । মধ্যে পড়ে বেচারা ক্রেতা আর জিবনে অনলাইন এ কিনবে না । লস দুইজনেরই সুতরাং কারো দাম অনেক বেশি হলে তাকে নক করেন এবং বুঝান । আর ডাকাতি করলে সেটা কতৃপক্ষকে অবহিত করুন ।
  •  
  • ৭. আর যদু মদু ওয়েব সাইট নিয়ে বিজনেস কইরেন না , এতে আপনার কোয়ালিটির উপর মানুষের ডাউট হয় ।

সবাই মিলে মিশে ব্যবসা করুন । এক থাকুন সৎ থাকুন ।

Author

Write A Comment